WB Weather Update: প্রবল তাপপ্রবহে পুড়ছে দক্ষিণবঙ্গ, বর্ষার স্বস্তি কবে থেকে মিলবে? IMD কী জানাল?

আমাদের WhatsApp Group-এ যুক্ত হন👉 Join Now

WB Weather Update: জুন মাসের মাঝামাঝি সময় পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত বর্ষার দেখা নাই। তীব্র গরমে নাজেহাল অবস্থা রাজ্যবাসীর। এই অবস্থায় সকলেই এক ফোঁটা বৃষ্টির জন্য তাকিয়ে রয়েছে। রাজ্যের একাধিক জায়গার তাপমাত্রা ৪০ এর আশেপাশে রয়েছে। সম্প্রতি আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর কর্তৃক জানানো হয়েছে গত ২৪ ঘন্টার মধ্যে দক্ষিণবঙ্গের মধ্যে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল খড়গপুরে (৪২.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস)।

শহর কলকাতাতে গরমের তীব্রতা অনেক বেশি। ব্যক্তিগত ২৪ ঘন্টার মধ্যে কলকাতার তাপমাত্রা ছিল ৩৭.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তবে তাপমাত্রার পারদ খুব বেশি না হলেও গরমের তীব্রতা বাতাসের আপেক্ষিক আর্দ্রতার কারণে অনেক বেশি। গুমোট গরমের কারণে অস্বস্তিতে ভুগছে সমস্ত রাজ্যবাসী।

এই অবস্থা যে শুধুমাত্র দক্ষিণবঙ্গবাসীর তা নয় বরং দক্ষিণবঙ্গের পাশাপাশি উত্তরবঙ্গের একাধিক জেলাতেও গরম অনেক বেশি রয়েছে। বিগত ২৪ ঘন্টার মধ্যে বালুরঘাটে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৯.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।  

অতিরিক্ত গরমের কারণে প্রচুর ঘামও হচ্ছে। যার ফলে ফলে ডিহাইড্রেশন, সান স্ট্রোকের সম্ভাবনাও বৃদ্ধি পাচ্ছে। শরীর থেকে প্রয়োজনীয় জল ও লবণ বেরিয়ে যাচ্ছে। তাই সুস্থ থাকতে ডাক্তাররা বেশি করে জল ও ওআরএস পান করতে বলছেন।

তীব্র গরমের হাত থেকে বাঁচতে এখন রাজ্যবাসী সকলেই বর্ষার অপেক্ষায় রয়েছে। আবহাওয়া দপ্তর কর্তৃক জানানো হয়েছিল ১৪ জুনের মধ্যে বর্ষা বঙ্গে প্রবেশ করবে। কিন্তু ১৫ জুন পেরিয়ে গেলেও বর্ষার দেখা মেলে না। এই নিয়ে সাংবাদিকরা আবহাওয়া দপ্তরের পূর্বাঞ্চলীয় আধিকারিকের একটি সাক্ষাৎকার নেন।

আমাদের WhatsApp Group-এ যুক্ত হন👉 Join Now

ওই সাক্ষাৎকারে তিনি জানান যে, বর্তমানে যা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে তা দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ুর জন্য অনুকূল রয়েছে আর এর ফলে বর্ষার খুব শীঘ্রই আগমন ঘটবে। আবহাওয়া দপ্তর কর্তৃক জানানো হয়েছে আগামী ১৮ জুন নাগাদ গাঙ্গেয় বঙ্গে বর্ষার আগমন ঘটতে পারে।

গুরুত্বপূর্ণ লিঙ্ক (Important links)

WhatsApp গ্রুপে যুক্ত হনযুক্ত হন

Sarmin Rima

সারমিন রিমা (Sarmin Rima) Bong Hunt-এর একজন সদস্য। বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে তিনি স্নাতকোত্তর (M.A)। পড়াশুনা করেছেন সাংবাদিকতা নিয়েও। এছাড়াও বিভিন্ন ডিজিটাল মাধ্যমে তাঁর বিগত ৩ বছরের সাংবাদিকতার অভিজ্ঞতা রয়েছে। শিক্ষা, চাকরি, সরকারি প্রকল্প সহ বিভিন্ন বিষয়ে লেখায় তিনি সিদ্ধহস্ত।